গ্রামীণ ব্যাংক এখনো বিপদমুক্ত হয়নি: ড. ইউনুস

২৪ ডিসেম্বর,২০১৬

নিজস্ব প্রতিনিধি

আরটিএনএন

চট্টগ্রাম: আইন করতে যখন গেলাম, তখন মন্ত্রণালয় থেকে বলা হলো যে, এভাবে তো পারবেন না। সরকারকে কিছু শেয়ার দিতে হবে। এই যে বিপদে পড়েছি, এ বিপদ থেকে এখনো মুক্ত হইনি। এ চক্কর এখনও চলছে।


শনিবার সকালে চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুলের ১৮০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ‘সামাজিক ব্যবসা প্রেক্ষাপট: বিশ্ব ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক বক্তব্যে ড. ইউনূস এ মন্তব্য করেন।


গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠার প্রেক্ষাপট তুলে ধরে ড. ইউনূস বলেন, ‘মহাজনদের উৎপাত থেকে রক্ষা করার জন্য নিজের পকেট থেকে কৃষকদের টাকা দেওয়া শুরু করি। ১৯৭৬ সালে এটি শুরু হলো। ১৯৮৩ সালে এটি ব্যাংকে রূপান্তরিত হলো। আইডিয়া হলো, এটার মালিক হবেন গ্রামীণ ব্যাংকের সদস্যরা। এটি ব্যবসায়িক ভিত্তিতে চলবে। লাভের টাকা ঋণগ্রহীতাদের কাছেই ফিরে যাবে। বাইরের কেউ পাবে না।’


প্রতিষ্ঠাকাল সময়ের কথা তুলে ধরে ইউনূস বলেন, ‘আমি সরকারকে বললাম যে ঠিক আছে ৫ শতাংশ দিই, ১০ শতাংশ দিই। তারা যখন আইন বানাল, সে আইনে তারা করে দিল ৭৫ ভাগ মালিকানা সরকারের, ২৫ ভাগ মালিকানা সদস্যদের। আমি বললাম, এটা তো হবে না। চাচ্ছিলাম পুরোপুরি গরিবের মালিকানায় হবে। এখানে সরকারের কিছু থাকবে না। বহু দর-কষাকষির পরে এ আইন সংশোধন করা হলো। সংশোধন করে পাল্টানো হলো। ৭৫ ভাগ সদস্যদের, ২৫ ভাগ সরকারের।’


তিনি বলেন, ‘এমনভাবে আইন হলো, সমস্ত কিছু নিয়ন্ত্রণ করবে বোর্ড। সদস্যদের প্রতিনিধি ও সরকারের প্রতিনিধি বোর্ডে থাকবেন। সেভাবেই চলল, সদস্যদের মালিকানা। এর ওপরে সরকারের আর কোনো কথা চলবে না। শুধু বোর্ডের কথাতে চলবে। হঠাৎ পরবর্তী সময়ে সরকারের শখ হলো যে, এটা ওভাবে চলতে দেওয়া যায় না। এটা সরকারের আয়ত্তে আনতে হবে। তারপরই সমস্যা শুরু হয়ে গেল।’


ড. ইউনূস আরো বলেন, ‘যদিও ২৫ ভাগ মালিকানা সরকারের, সরকার আর পয়সা দিচ্ছিল না। ওদিকে সদস্যদের বিনিয়োগের পরিমাণ বাড়ছে। ক্রমে ক্রমে সদস্যদের শেয়ার হয়ে গেল ৯৮ শতাংশ আর সরকারের ২ শতাংশ। এভাবেই চলছিল।’


চট্টগ্রাম কলেজিয়েটের সভাপতি এম এ মালেকের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন ১৮০ বছর পূর্তি ও পুনর্মিলনী উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক আমীর হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী এবং সদস্যসচিব মোস্তাক হোসাইন।

মন্তব্য

মতামত দিন

অর্থনীতি পাতার আরো খবর

সোনামসজিদ স্থলবন্দর ৮ ও বেনাপোলে ৪ দিন আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: পবিত্র ঈদুল ফিতর ও সাপ্তাহিক ছুটির কারণে সোনামসজিদ স্থলবন্দরে টানা ৮দিন ও বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে . . . বিস্তারিত

রিজার্ভে ৩৩ বিলিয়ন ডলারের রেকর্ড

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: বছরের শুরুতেই রেমিট্যান্স খরা। বছরের প্রথম প্রান্তিক শেষে এ খরা রূপ নেয় মহামারিতে। গত ৪ বছ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান, গোলাম রসুল প্লাজা (তৃতীয় তলা), ৪০৪ দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com