সর্বশেষ সংবাদ: |
  • প্রার্থিতা নিয়ে খালেদা জিয়ার বিভক্ত আদেশের পূর্ণাঙ্গ আদেশ না লিখেই প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানোয় তা আবার সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে ফেরত পাঠিয়েছেন প্রধান বিচারপতি
  • নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণহানি ও মির্জা ফখরুলের গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় নির্বাচন কমিশন বিব্রত, আর কোনো অঘটন কাম্য নয় : সিইসি
  • ভোট ৫০ ভাগ সুষ্ঠু হলেই সরকারি দলকে নির্বাচনে খুঁজে পাওয়া যাবে না, তাই সন্ত্রাসের আশ্রয় নিয়েছে আওয়ামী লীগ : ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ
  • নাশকতার মামলায় রাজধানীর গুলশানের বাসা থেকে বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি পুলিশ
  • বিএনপি নেতা ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু ও রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর মনোনয়নপত্র গ্রহণ করতে হাইকোর্টের দেওয়া স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ

জাতীয় পার্টির ভোট কমার কারণগুলো

০৬ ডিসেম্বর,২০১৮

জাতীয় পার্টির ভোট কমার কারণগুলো

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: ১৯৯০ সালে গণআন্দোলনের মুখে সামরিক শাসক জেনারেল এইচ এম এরশাদের পতনের রাজনীতিতে জাতীয় পার্টি কতটা শক্তিশালী অবস্থানে থাকবে সেটি নিয়ে অনেকের সংশয় ছিল।

১৯৯১, ১৯৯৬ এবং ২০০১ সালে জাতীয় পার্টি এককভাবে নির্বাচন করলেও বড় রাজনৈতিক দলগুলো, বিশেষ করে আওয়ামী লীগের কাছে, জাতীয় পার্টির গুরুত্ব কমেনি।

১৯৯৬ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সবচেয়ে বেশি আসনে জয়লাভ করলেও সরকার গঠনের জন্য পর্যাপ্ত আসন তারা পায়নি।

ফলে এরশাদের নেতৃত্বে জাতীয় পার্টির সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করেছিল আওয়ামী লীগ।

গত প্রায় ১৫ বছর ধরে নির্বাচন কেন্দ্রিক রাজনীতিতে জাতীয় পার্টির গুরুত্ব বেড়েছে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের সাথে মহাজোট গঠনের পর নির্বাচনে অন্যতম নিয়ামক হয়ে উঠে জাতীয় পার্টি।

গত কয়েকটি নির্বাচনে মহাজোটের শরীক দল হিসেবে জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগের সাথে দরকষাকষিও করেছে অনেক।

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, যেসব আসনে কম ভোটের ব্যবধানে জয়-পরাজয় নির্ধারিত হয়, সেসব জায়গায় জাতীয় পার্টির গুরুত্ব রয়েছে।

সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি
নির্বাচন  প্রাপ্ত আসন   প্রাপ্ত ভোট
১৯৯১    সাল ৩৫     ১১.৭৯%
১৯৯৬    সাল ৩২     ১৬.৩৯%
২০০১    সাল ১৪     ৭.১৮%
২০০৮    সাল ২৭    ৬.৯৭%

জাতীয় পার্টির ভোট কমছে কেন?
জেনারেল এরশাদের পতনের পর, বিশেষ করে ১৯৯১ এবং ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে, জাতীয় পার্টি যত ভোট পেয়েছিল সেটি পরবর্তীতে ক্রমাগত কমেছে।

জাতীয় পার্টির ভোট বৃদ্ধি কিংবা হ্রাসের সাথে বিএনপির ভোট হ্রাস-বৃদ্ধির সম্পর্ক রয়েছে। এমনটাই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

ফলে ১৯৯১ সালের পর থেকে বিএনপির যত ভোট বেড়েছে, জাতীয় পার্টির সমর্থন তত কমেছে বলে মনে করেন মহিউদ্দিন আহমদ।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহিউদ্দিন আহমদ বলেন, বিএনপির সমর্থক গোষ্ঠীর ভেতর থেকেই জাতীয় পার্টির সমর্থন গড়ে উঠেছিল।

যেসব জায়গায় জাতীয় পার্টির শক্ত অবস্থান ছিল সেসব জায়গা ১৯৯৬ সালের পর থেকে বিএনপি এবং আওয়ামী লীগের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়।

২০০১ সালের নির্বাচনে বিএনপি ভালো ফলাফল করায় জাতীয় পার্টির ভোট কমে যায়। এছাড়া ২০০৮ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টির আসনগুলোতে বিএনপির প্রাপ্ত ভোট বেড়েছে।

তাছাড়া উত্তরাঞ্চলের আওয়ামী লীগেরও একটি শক্ত অবস্থান গড়ে উঠে। যদিও জাতীয় পার্টি এবং আওয়ামী লীগ জোটবদ্ধ ভাবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল কিন্তু উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি আসনে জাতীয় পার্টির এবং আওয়ামী লীগ আলাদাভাবে নির্বাচন করে। মোট প্রাপ্ত ব্যাপকভাবে কমে যাবার পেছনে সেটিও একটি বড় কারণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, ‘বিএনপি যদি সমর্থনের দিক থেকে নিচের দিকে চলে যায় তাহলে স্বাভাবিকভাবেই জাতীয় পার্টির সমর্থক সংখ্যা বা ভোটার সংখ্যা বাড়ে’।

কাদের বলেন, ‘মধ্য থেকে শুরু করে যারা ডান দিকে ঝুঁকে আছে তারা সাধারণত বিএনপিকে লিডারশীপে নেয়। অথবা বিএনপি দুর্বল হয়ে গেলে জাতীয় পার্টিকে লিডারশীপে নেয়। জাতীয় পার্টি কোন কারণে দুর্বল হলে আমাদের ভোটগুলো বিএনপির দিকে যায়’।

জাতীয় পার্টির এ নেতা বলেন, গত ২৮ বছর ধরে দল ক্ষমতার বাইরে থাকার কারণে তাদের ভোট হয়তো কমেছে।

‘হয়তো কিছু সমর্থক আমাদের কমে গেছে, এটা বাস্তবতা। ক্ষমতার বাইরে থাকলে যে কোন বড় রাজনৈতিক দলের অনেক সময় সমর্থকদের প্রত্যাশা অনুযায়ী সুযোগ-সুবিধা দেয়া বা সমস্যা সমাধানে ভূমিকা রাখার ক্ষেত্রে কিছুটা হলেও দুর্বল হতে হয়’, বলেন কাদের।

বিগত নির্বাচনগুলোর ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, আওয়ামী লীগের সাথে জাতীয় পার্টির ভোট একত্রিত হবার কারণে উত্তরাঞ্চলেও বিভিন্ন জেলায় মহাজোট প্রার্থীদের বিজয় শুধু নিশ্চিতই হয়নি অনেক সহজও হয়েছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, এরশাদের জাতীয় পার্টি এখন নির্বাচনে ব্যালেন্সিং ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করছে। জাতীয় পার্টির ভোট ব্যাংক যে দলের দিকে যাবে তারা নির্বাচনে সুবিধা পাবে বলে মনে করেন তিনি।

এজন্যই মহাজোটে জাতীয় পার্টির কদর রয়েছে বলে উল্লেখ করেন মহিউদ্দিন আহমদ।

মন্তব্য

মতামত দিন

রাজনীতি পাতার আরো খবর

‘বিএনপি কেন্দ্র দখলে বাধা দিলে চোখ উপড়ে ফেলা হবে’

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনসুনামগঞ্জ: নৌকার পক্ষে আসনের সবগুলো ভোটকেন্দ্র দখল করা হবে এবং এতে বিএনপি নেতাকর্মীরা বাধা দিলে . . . বিস্তারিত

পুলিশ প্রটোকলে আইনমন্ত্রীর নির্বাচনী প্রচারণা, পক্ষে ওসির ভোট প্রার্থনা

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনব্রাহ্মণবাড়িয়া: আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক ব্রাহ্ম . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com