সর্বশেষ সংবাদ: |
  • ব্রিটিশ হাইকমিশনারকে আমাদের উদ্বেগের বিষয়গুলো জানিয়েছি: ড. কামাল
  • দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন নিয়ে সুজনের সংশয়, বিতর্কিত নির্বাচন হলে দেশের তরুণরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে : বদিউল আলম মজুমদার
  • জিয়া অরফানেজ মামলায় রায়ের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল, সাজা স্থগিত ও জামিন চাওয়া হয়েছে, নির্বাচনে বাধা নেই : ব্যারিস্টার কায়সার কামাল
  • বিকল্পধারার চেয়ারম্যান ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরীর সঙ্গে ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলার বৈঠক চলছে
  • তারেক রহমানের ভিডিও কনফারেন্স বিএনপির অভ্যন্তরীণ বিষয়

‘নেতা-নেত্রী যদি দেশে চিকিৎসা করাতেন, তাহলে চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নতি হতো’

০৮ নভেম্বর,২০১৮

‘নেতা-নেত্রী যদি দেশে চিকিৎসা করাতেন, তাহলে চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নতি হতো’

নিউজ ডেস্ক
আরটিএনএন
ঢাকা: ব্রিটেনের একটি মেডিকেল জার্নালের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের ডাক্তাররা একজন রোগীকে গড়ে মাত্র ৪৮ সেকেন্ড সময় দেন। এ প্রসঙ্গে চিকিৎসা বিষয়ক নানা অভিজ্ঞতার কথাই পাঠকরা তুলে ধরেছেন ডয়চে ভেলের ফেইসবুক পাতায়।

ডাক্তারি হচ্ছে মানুষের সেবার কাজ, তাই রোগীর প্রতি ডাক্তারদের আরো দায়িত্বশীল হওয়া উচিৎ বলে মনে করেন পাঠক রিশা।

আর রহুন আমিন সজীব মনে করেন, বাংলাদেশের ডাক্তার দেখানোর খরচ পৃথিবীর অন্য যে কোনো উন্নত দেশের তুলনায় ৪৮ গুণ বেশি। আর সেকারণেই নাকি অনেক মানুষ রোগ পুষে রাখেন অযাচিত খরচের ভয়ে। বাইরের দেশে রোগকে ভয় পায়, চিকিৎসাকে না। শুধুমাত্র আমাদের দেশেই রোগী বাঁচাতে গিয়ে স্বজনকে মরতে হয় অর্থাভাবে।

ওবায়দুল্লাহ মিজানের বিদ্রুপাত্মক মন্তব্য,‘ বাংলাদেশের ডাক্তারা খুবই ভালো, তারা রোগী না দেখেই চিকিৎসা করতে পারেন।’

পাঠক মিন্টু মোরশেদের অভিজ্ঞতা এরকম, ‘বাংলাদেশের ডাক্তারদের অভিজ্ঞতা অনেক বেশি, চেহারা দেখেই সব বলে দিতে পারে। আমি তো একবার মাথা ব্যথার জন্য তিন মাস ঘুরেছি, রোগ নির্ণয় করতে পারেনি।’

এ বিষয়ে আজমির পাটোয়ারী মনে করেন, ডাক্তাররা আরো কম সময় দেন রোগীদের। তবে পাঠক শেখ ফরহাদ বিন আবেদিন মনে করেন, দেশের নেতা-নেত্রী যদি নিজের দেশেই চিকিৎসা করাতে বাধ্য হয়, তাহলে চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নতি হতে পারে।

ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সংলগ্ন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। ১৯৪৬ সালে প্রতিষ্ঠিত এ হাসপাতালটি বর্তমানে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। সরকারি এ হাসপাতালটি ২০১৫ সালে প্রায় আট লক্ষ রোগীকে সেবা প্রদান করেছে।

অন্যদিকে আবরাহাম বলছেন, তার পরিচিত এক ডাক্তার নাকি প্রতিদিন কমপক্ষে ৪০০ রোগী দেখেন। আর সুব্রত শীল জানান, সে কারণেই নাকি বাংলাদেশের রোগীরা সুচিকিৎসার জন্য ভারতে যান। বাংলাদেশর অনেক ডাক্তার রোগীদের সাথে ভালোভাবে কথা বলেন না বলেও মনে করেন তিনি।

তবে ভিন্নমত পাঠক জামানের। তিনি লিখেছেন, ‘ব্রিটেনের একটি মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত পুরো রিপোর্ট না পড়ে মন্তব্য করা সম্ভব না।’

বন্ধু মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন মনে করেন, এমন ডাক্তারদের বিরুদ্ধে সরকারের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

মন্তব্য

মতামত দিন

রাজনীতি পাতার আরো খবর

ব্যবসায়ীরা রাজনীতিতে এলে অসুবিধা কোথায়?

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: গত কয়েকটি সংসদ নির্বাচনে ব্যবসায়ীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ ও সংসদ সদস্য হওয়ার প্রবণতা বাড়ছে। এ . . . বিস্তারিত

নয়াপল্টনের সেই হেলমেটধারী আটক

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় হেলমেট পরে পুলিশের গাড়ির ওপর উ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com