‘বল এখন প্রধানমন্ত্রীর কোর্টে, সমাধাণ না হলে আন্দোলন’

০৭ নভেম্বর,২০১৮

 ‘বল এখন প্রধানমন্ত্রীর কোর্টে সমাধাণ না হলে আন্দোলন’

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন ‘বল এখন প্রধানমন্ত্রীর কোর্টে’ সমাধাণ না হলে প্রয়োজনে নির্বাচন বয়কট করে আট দলীয় বাম গণতান্ত্রিক জোট আন্দোলনের জন্যও প্রস্তুত।

সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তদারকি সরকার গঠন, নির্বাচন কমিশন পুর্নগঠন, মিথ্যা-গায়েবি মামলা বন্ধ করে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে এ জোট।

মঙ্গলবার গণভবনে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারি জোটের সঙ্গে আট দলীয় বাম গণতান্ত্রিক জোটের সংলাপ শুরু হয়ে সাড়ে ১০টায় শেষ হয়।

সংলাপ শেষে সাংবাদিকদের মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, ‘আমরা আমাদের বক্তব্য সুস্পষ্টভাবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরেছি। এখন বল তার কোর্টে। তিনি এগুলো বিবেচনা করে কি সিদ্ধান্ত নেন তার ওপর নির্ভর করছে আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে কি হবে না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য প্রস্তুত আছি। পরিস্থিতি অনুকূল না হলে সেটা বয়কট করার জন্যও প্রস্তুত আছি।’ সিপিবি সভাপতি বলেন, ‘আমরা অপেক্ষা করে থাকবো প্রধানমন্ত্রী আমাদের কথা কতটুকু বিবেচনায় নিয়েছেন।’

সংলাপে সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন, নির্বাচন কমিশন পুর্নগঠন, ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার না করা, মিথ্যা-গায়েবি মামলা ও বিরোধী জোটের ওপর দমন-পীড়ন বন্ধসহ জোটের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরা হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানান বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক।

সাইফুল হক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনের পরে তিনি কিভাবে দেখছেন তার ওপর নির্ভর করে আমরা আমাদের আন্দোলনে করণীয় ও রাজনৈতিক করণীয় নির্ধারণ করবো।’

তিনি বলেন, ‘আমরা নির্বাচন করতে চাই, নির্বাচনের জন্য গণতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরি করার জন্য সংলাপ করছি, রাজপথে ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন করছি।’

বাম জোট সমন্বয়ক বলেন, ‘আমরা এখনও আশা করতে চাই, যে শেষ মুহূর্তে হলেও সরকারের সদিচ্ছা জাগ্রত হবে। এবং তারা উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।’

‘আমাদের দাবি-দাওয়া লিখিতভাবে জানিয়েছি। আশা করি, সরকার কার্যকর উদ্যোগ নেবে।’

অন্যদের মধ্যে সংলাপে উপস্থিত ছিলেন-সিপিবি সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বজলুর রশীদ ফিরোজ, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য আকবর খান, বাসদের (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় পরিচালনা কমিটি সদস্য শুভ্রাংশু চক্রবর্তী ও আলমগীর হোসেন দুলাল, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য ফিরোজ আহমেদ, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নু, আব্দুস সাত্তার, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, কেন্দ্রীয় কমিটি সদস্য মোমিনুর রহমান বিশাল, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহ্বায়ক হামিদুল হক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রনজিৎ কুমার।

মন্তব্য

মতামত দিন

রাজনীতি পাতার আরো খবর

ঢাবিতে সহাবস্থান নিয়ে বিতর্ক, ডাকসু নির্বাচন কি জাতীয় নির্বাচনের পথে?

নিউজ ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: দীর্ঘ ২৮ বছর পরে আদালতের নির্দেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন অনু . . . বিস্তারিত

চরমোনাই পীর আমির, অধ্যক্ষ ইউনূস মহাসচিব

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বর্তমান আমির পীর সাহেব চরমোনাই মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম আ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com