ব্রেকিং সংবাদ: |
  • সিনহার ব্যাংক হিসাবে অস্বাভাবিক লেনদেন, নিরঞ্জন ও শাহজাহানকে দুদকে তলব
  • জিজ্ঞাসাবাদের পর ছাড়া পেলেন বিডিজবসের প্রধান নির্বাহী
  • টরেন্টোর হামলাকারী সম্পর্কে সর্বশেষ যা জানা যাচ্ছে
  • তাবিথ আউয়াল ও আব্দুল হাই বাচ্চুকে দুদকে তলব
  • হঠাৎ কেঁপে উঠলো সিলেট, ৫ দশমিক ২ মাত্রার ভূমিকম্প
  • টরোন্টোয় গাড়িচাপায় প্রাণ গেল ১০ পথচারীর, ট্রুডোর সান্ত্বনা
  • বিজেপির শীর্ষ নেতাদের বক্তব্যে ঢাকার রাজনীতিতে তোলপাড়
  • খালেদা জিয়ার সাথে দেখা করতে গেছেন স্বজনরা
  • কাবুলে ভোটার নিবন্ধনকেন্দ্রে হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৩
  • ২৫ বছরের যুদ্ধে সোয়া কোটি মুসলিম নিহত, যা একটি বিশ্বযুদ্ধের সমান ক্ষয়ক্ষতি
  • খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সপ্তাহব্যাপী বিএনপির নতুন কর্মসূচি ঘোষণা
  • ত্রিভুবন বিমানবন্দরের গাফিলতিই দুর্ঘটনার জন্য দায়ী: ইউএস-বাংলা
  • যে শর্তে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে বিএনপিকে ছাড় দিল জামায়াত

খালেদা জিয়াকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিচ্ছেন না সরকারি চিকিৎসকেরা: রিজভী

১৫ এপ্রিল,২০১৮

খালেদা জিয়াকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিচ্ছেন না সরকারি চিকিৎসকেরা: রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: খালেদা জিয়া অসুস্থ হলেও যতটা চিকিৎসা দেয়া দরকার তা সরকারি চিকিৎসকরা দিচ্ছেন না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রবিবার সকালে রাজধানীর নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই মন্তব্য করেন।

তিনি আরও বলেন, কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে গুরুতর অসুস্থ। তিনি অসুস্থ হলেও এখন পর্যন্ত তাকে কোনো চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না। সরকার বেগম খালেদা জিয়াকে তিলে তিলে নি:শেষ করতে চায়।

রিজভী বলেন, সরকারী মেডিকেল বোর্ড মামুলি প্রহসনের এক্সরে ও রক্ত পরীক্ষা করে ফিজিওথেরাপীর সুপারিশ করেছে। অথচ তাকে তিলে তিলে নি:শেষ করার জন্যই ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে তাঁকে পরিকল্পিতভাবে সাজা দিয়ে কারাবন্দী করে এখন চিকিৎসার সুযোগও দেয়া হচ্ছে না। এটা জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ধ্বংস করতে বহুমুখী চক্রান্তের অংশ।

‘অশুভ শক্তি যেন আর ক্ষমতায় না আসতে পারে’ গতকাল পহেলা বৈশাখের এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রিজভী বলেন, এখন জনগণ মনে করে দেশের সবচেয়ে বড় অশুভ শক্তি বর্তমান মহাজোট সরকার। ভোটারবিহীন অগণতান্ত্রিক শক্তি হচ্ছে সবচাইতে নিকৃষ্ট অশুভ শক্তি।

তিনি বলেন, একজন বয়স্ক ও দেশের জনপ্রিয় নেত্রী যিনি দীর্ঘদিন ধরে হাঁটু ও চোখের সমস্যার পাশাপাশি তাকে কারাগারে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে রাখায় আরো বেশকিছু শারীরিক সমস্য দেখা দিয়েছে। তার দুই হাঁটু প্রতিস্থাপন করা হয়েছে এবং সম্প্রতি চোখের অপারেশনও হয়েছে। এমনকি সরকারী মেডিকেলের চিকিৎসক বোর্ড বলেছে তার এক্স-রে রিপোর্টগুলোতে দেখা যাচ্ছে ঘাড়ে ও কোমরের হাড়ে সমস্যা আছে।

এমতাবস্থায় আধুনিক চিকিৎসার যুগে এমআরআইসহ উন্নত পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া শুধু এক্সরে ও রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে সুনির্দিষ্ট ও সঠিক রোগ নির্নয় সম্ভব নয়। দেশনেত্রীকে যেদিন পিজি হাসপাতালে আনা হয়েছিল সেখানে ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের ডাকা হলেও তাদেরকে চিকিৎসাসেবার সুযোগ ও পরামর্শ নেয়া হয়নি।

তিনি বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাথে কারাগারে তার ঘনিষ্ঠ আত্মীয়স্বজনদের দেখা করতেও বাধা দেয়া হচ্ছে। বিএনপির পক্ষ থেকে আমি বেগম জিয়ার সুচিকিৎসার জন্য অতি দ্রুত তার নি:শর্ত মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, সরকারী হুকুমে কারসাজিমূলকভাবে বেগম জিয়ার জামিনকে স্থগিত করা হয়েছে, এসব ঘৃণ্য চক্রান্ত বাদ দিয়ে তাকে অবিলম্বে মুক্তি দিন। তার চিকিৎসা কিসে ভাল হয় সেটি তাকে সিদ্ধান্ত নেয়ার সুযোগ দিন। বেগম জিয়ার ইচ্ছানুযায়ী তার সুচিকিৎসা নিশ্চিত করুন।

সরকারকে অশুভ আখ্যা দিয়ে রিজভী বলেন, মানুষ দিন গুনছে এই অশুভ শক্তির পতনের। আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত স্বৈরাচারীরা কী শুভ শক্তি? অনাগত দিনের দুশ্চিন্তা, রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা, ঘনায়মান হতাশা আর বিরোধীদের গুম, খুন, অদৃশ্য করা, হাত-পায়ের নখ তুলে ফেলা, হাঁটুতে গুলি করে চিরদিনের জন্য পঙ্গু করা, খুলনায় বিএনপি নেতাকে তুলে নিয়ে কক্সবাজারে অর্ধমৃত অবস্থায় ফেলে দেয়া ইত্যাদি পরিস্থিতিতে দেশের বিরাট জনগোষ্ঠী প্রাণখুলে হাসতে পর্যন্ত ভুলে গেছে।

এই পরিস্থিতি কী কোনো শুভ শক্তির লক্ষণ? জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে, জনগণের সমস্ত মৌলিক ও মানবাধিকার কেড়ে নিয়ে, নির্যাতন-নিপীড়ণ চালিয়ে সম্পূর্ণ বন্দুকের জোরে ক্ষমতায় টিকে আছেন। এটা কী শুভ শক্তির পরিচয় বহন করে? এখন রাষ্ট্রক্ষমতাকে আরো দীর্ঘ মেয়াদে ভোগ করার স্বপ্নে দেশের জাতীয়তাবাদী শক্তিকে নির্মূল করতে জেলজুলুম ও বিভিন্ন কায়দায় নির্যাতন-নিপীড়ণ চালিয়েও নিজেদের নিরাপদ মনে করছেন না।

তিনি বলেন, গতকাল প্রধানমন্ত্রী পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানে কবিগুরুর ‘১৪০০ সাল’ কবিতাটি আওড়িয়েছেন। আমি শুধু প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে এটুক্ইু বলতে চাই-বিরোধীদের প্রতি সরকার প্রধানের ক্ষোভ, ঘৃনা এবং ধ্বংস করার মানসিকতার কারণে বর্তমান প্রেক্ষাপটে ওই কবিতাটি এখন কীভাবে গৃহীত হচ্ছে সেটি তিনি উপলব্ধি করতে পারেননি।

রিজভী জানান, ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খন্দকার আবু আশফাককে উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় যোগ দিতে বাধা দেয়া হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। গত বৃহস্পতিবার তিনি পরিষদের মাসিক সভায় যোগ দিতে গেলে বিপুল সংখ্যক পুলিশ তার গাড়ির গতিরোধ করে এবং গ্রেফতারের ভয় দেখায়। যদিও তিনি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত একটি অসত্য ও বানোয়াট মামলায় উচ্চ আদালত কর্তৃক জামিনে রয়েছেন।

এই মামলা ছাড়া তার নামে কোনো মামলা না থাকলেও তাকে গ্রেপ্তারের ভয় দেখানো হয়। একপর্যায়ে পুলিশ আবু আশফাককে উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় যোগ দিতে না দিয়ে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করতে উদ্যত হলে তিনি ফিরে যেতে বাধ্য যান। বিষয়টি নিয়ে খন্দকার আবু আশফাক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পুলিশ সুপার ঢাকাকে অবহিত করলেও তারা কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেননি।

আশফাক ঘটনাটিকে পরিকল্পিত দাবি করে বলেছেন-মূলত: স্থানীয় প্রশাসন পরিকল্পনা করে উপজেলা পরিষদের দায়িত্ব থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্তের ষড়যন্ত্র করছে। খন্দকার আবু আশফাক মামলায় জামিনে থাকা সত্ত্বেও তাকে গ্রেপ্তারের হুমকি প্রদান এবং স্থানীয় প্রশাসন কর্তৃক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্তে ষড়যন্ত্রের ঘটনায় বিএনপির পক্ষ থেকে আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং এধরনের উদ্যোগ থেকে বিরত থাকার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহবান জানাচ্ছি।

আরও পড়ুন.....
সরকারের কূটচালের ব্যাপারে শিক্ষার্থীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানালেন রিজভী
‘কোটা সংস্কারের বদলে কোটা বাতিল করার পর এখন সরকার কি কূটচাল চালে সে ব্যাপারে শিক্ষার্থীদের সতর্ক থাকবে হবে’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শুক্রবার (১৩ এপ্রিল) নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় রিজভী সংসদে দেয়া প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেন, গতকাল (১২ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদে বলেছেন, জনগণ ভোট দিলে আগামীতে আওয়ামী লীগ আবারও ক্ষমতায় আসবে। আপনি কী জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে এখন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন? আপনি তো নিজের ভোটও নিজেকে দেননি। দেশ পরিচালনা করতে আপনাদের তো জনগণের ভোটের প্রয়োজন হয় না। আপনাদের মুখে জনগণের নিকট ভোট চাওয়ার কথা রসিকতা ছাড়া আর কিছুই নয়। এই চলতি অধিবেশনে মহিলা এমপি বেগম খুরশেদ আরা হক বলেছেন, ‘কিছু মানুষ আছে শুধু নির্বাচন নির্বাচন বলে, আমি নির্বাচন চাই না, নির্বাচন হলে মানুষ মারা যায়, আমাদের বিরোধী দলীয় নেত্রী তো সবসময় হ্যাঁ বলেন, তিনিই বিরোধী দলীয় নেত্রী থাক, আর আমাদের প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীই থাক, উনার পরিবার ক্ষমতায় থাক, প্রধানমন্ত্রী কষ্ট করে যে টাকাগুলো জমিয়েছেন এগুলোর ওপর লোভ পড়েছে, প্রধানমন্ত্রী না থাকলে টাকাগুলো পাচার হয়ে যাবে।’ ব্যাংক তো এখন উষর মরুভূমি, তাহলে জমানো টাকাগুলো কোথায় আছে, মানুষ তা জানতে চায়।

তিনি বলেন, ভোট ছাড়া আবারও কিভাবে ক্ষমতা ধরে রাখা যায়, কিভাবে বিনা ভোটে আবারও প্রধানমন্ত্রী হওয়া যায়, সেই পথ নকশা এঁটেই দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী ও বৃহত্তম রাজনৈতিক দলের প্রধান দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জাল নথির মিথ্যা সাজানো মামলায় কারাগারে বন্দী করে রাখা হয়েছে। আগামীতে যে আর বিনা ভোটের নির্বাচন শেখ হাসিনা করতে পারবেন না সেটি তিনি উপলব্ধি করেছেন বলেই জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী তার জোটের এমপিদেরকে দিয়ে নির্বাচন না করানোর জন্য অর্বাচীনের মতো বক্তৃতা করাচ্ছেন।

এসময় বিএনপির এই মুখপাত্র সরকারকে হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, এবার জনগণের ভোটাধিকার জনগণ প্রয়োগ করবেই। যেকোন ন্যায্য দাবিতে আন্দোলন কখনো বৃথা যায় না। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ন্যায্য আন্দোলনের কাছে সরকার যেভাবে মাথা নত করেছে তাতে যুবক, যুবতী, তরুণ-তরুণীসহ সাধারণ মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে পাওয়া, দেশে গণতন্ত্র পুন:প্রতিষ্ঠা, মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার ন্যায্য আন্দোলনও বৃথা যাবে না। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বেই সেই আন্দোলনে বিজয় অর্জিত হবেই। বেগম খালেদা জিয়া বিহীন জাতীয় নির্বাচন আর এদেশে অনুষ্ঠিত হবে না, জনগণ তা হতে দেবে না। আর বেশী সময় নেই, আপনাদের সুস্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিতে চাই, এই মুহূর্তে সর্বপ্রথম দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে। আর তা না হলে জনগণ আর অপেক্ষা করবে না। নইলে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং শেখ হাসিনার পতন এক সাথে সংঘটিত হবে। বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে এবং মানুষের ভোটের অধিকার ফিরে পেতে যে আন্দোলন চলছে সেই আন্দোলনের বিজয় অতি সন্নিকটে। চক্রান্ত করে বন্দুকের জোরে মানুষের অধিকারকে দমিয়ে রাখা যাবে না।

তিনি জানান,গত পরশু বিএনপির আইনজীবীদের একটি প্রতিনিধি দল দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করতে গেলে বেগম জিয়া আইনজীবীগণকে বলেছেন, তারা যেন আমার পক্ষ থেকে দেশের জনগণ, দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং গণমাধ্যমের সাংবাদিকসহ সকলকে বাংলা নববর্ষের প্রাণঢালা শুভেচ্ছা জানান।

বর্তমান ভোটারবিহীন সরকারের দুঃশাসন, লুটপাট ও দুর্নীতির করালগ্রাসে দেশে এখন নীরব দুর্ভিক্ষ চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেছেন, বর্তমানে দেশে নিত্যপণ্যসহ দ্রব্যমূল্যের উধ্বগতি, গ্যাস বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি, বিনিয়োগ না থাকায় নতুন কর্মসংস্থান নেই, বিদেশী রেমিটেন্স আসা প্রায় বন্ধ, বেকার সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে, রাস্তাঘাট বেহাল দশার কারণে গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষগুলোও রিকসা ভ্যান, সিএনজি চালানোসহ যে সকল কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতো, সেটুকুর সুযোগও আজ নেই। গত বছরের বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্বিপাকে কৃষকের ফসলহানির পর সরকারের সবদিকে ব্যর্থতার কারণে চালের দামসহ সকল খাদ্যপণ্যের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধিতে মানুষ এখন দু’বেলা দুমুঠো ভাতও পাচ্ছে না।

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, গতকাল কুড়িগ্রামের রাজিবপুরে দরিদ্র ও ক্ষুধার্ত মানুষ সরকার ঘোষিত ১০ টাকা কেজির চাল নিতে গেলে যুবলীগ-ছাত্রলীগের হামলার শিকার হয়। ছাত্রলীগ-যুবলীগ ১০ টাকা কেজির চাল কালোবাজারে বিক্রির ঘটনায় নিজেদের ভাগাভাগি নিয়ে দফায় দফায় গুলিবর্ষণ, আক্রমণ ও সংঘর্ষ চলে। এদিকে বিক্ষুব্ধ জনতা আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ-যুবলীগ ও আওয়ামী লীগ মনোনীত ডিলারদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু করলে একপর্যায়ে এই ক্ষুধার্ত মানুষগুলোর ওপর গুলি চালায় তারা। আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় আসে তখনই দেশে দুর্ভিক্ষ নামে। ৭৪’র দুর্ভিক্ষের কথা মানুষ এখনও ভুলে যায়নি। কুড়িগ্রামের ঘটনা ৭৪’র দুর্ভিক্ষেরই আলামত।

মন্তব্য

মতামত দিন

রাজনীতি পাতার আরো খবর

দুদকের তদন্তে আটকে যাচ্ছেন বিএনপি নেতারা!

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: যেভাবে দুদক তদন্তে নেমেছে তাতে বিএনপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব আটকে যাচ্ছেন বলেই সরকারি মহলে রব উ . . . বিস্তারিত

শেখ হাসিনা ক্রিকেট স্টেডিয়াম হবে পূর্বাচলে

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: শত জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে পূর্বাচলে হচ্ছে শেখ হাসিনা ক্রিকেট স্টেডিয়াম। রাজধানী উন্নয়ন . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com