ডিএনসিসি’র মেয়র পদে লড়তে চান ডা. ইকবাল

০৭ ডিসেম্বর,২০১৭

ফাইল ফটো

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে মেয়র পদে লড়তে আগ্রহী প্রিমিয়ার ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ ডা. এইচ বি এম ইকবাল। সাবেক এই সংসদ সদস্য মনোনয়ন পেতে জোর লবিং শুরু করেছেন।

জানা গেছে, দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন, সুধী সমাজের সঙ্গে মতবিনিময় করছেন এই চেয়ারম্যান।

সবুজ ঢাকা গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে ডা. ইকবাল বলেন, ১০ বছর আগেই আমি ‘গ্রীন ঢাকা, ক্লিন ঢাকা’ শ্লোগান নিয়ে কাজ শুরু করেছিলাম। সংসদ সদস্য থাকাকালে বর্জ্য পরিষ্কারের জন্য ভ্যান চালুর উদ্যোগসহ নানামুখী কর্মকাণ্ড শুরু করেছিলাম। ঢাকাকে নিয়ে নতুন স্বপ্ন আছে। প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করা এবং নগরবাসীকে একটি ভিন্ন শহর উপহার দেওয়ার নানা পরিকল্পনাও রয়েছে তার।

নিউ ডিজিটাল ঢাকা এই শ্লোগানকে সামনে রেখে নগরীর যোগাযোগ ব্যবস্থার পুনর্গঠন, ঢাকার চারপাশে স্যাটেলাইট টাউনশিপ গড়ে তোলা, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার আধুনিকায়ন, সন্ত্রাস ও দুর্নীতি দূরীকরণ এবং প্রয়োজনীয় জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিতকরণে বিভিন্ন পরিকল্পনা রয়েছে ডা. ইকবালের।

প্রসঙ্গত, মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর পর ডিএনসিসির মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। তবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের তারিখ ঘোষণা না হলেও সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপি থেকে দলীয় মনোনয়ন পেতে অনেকেই চেষ্টা-তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন।

এইচ বি এম ইকবালের স্ত্রী-সন্তান কারাগারে
দুর্নীতির মামলায় আওয়ামী লীগ নেতা ডা. এইচ বি এম ইকবালের স্ত্রী মমতাজ বেগম, দুই ছেলে ও মেয়ের জামিন নাকচ করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আজ ৮মার্চ, (বুধবার) ঢাকার এক নম্বর বিশেষ জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করেন ইকবালের স্ত্রী ও ছেলেমেয়েরা।

পরে শুনানি শেষে বিচারক আতাউর রহমান তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। সাবেক সাংসদ ইকবাল ও তার স্ত্রী-ছেলেমেয়েকে বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে দুদকের মামলায় সাজা দেয় জজ আদালত। হাইকোর্ট পরে ইকবালকে খালাস দেয় ও স্ত্রী-সন্তানদের রায় স্থগিত করে।

কিন্তু গত বছর ইকবালের স্ত্রী-সন্তানদের আবেদন খারিজ করে দেন আপীল বিভাগ। এর চার মাস পর আজ বুধবার জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন ইকবালের স্ত্রী, ছেলে মোহাম্মদ ইমরান ইকবাল ও মঈন ইকবাল এবং মেয়ে নওরীন ইকবাল।

এইচ বি এম ইকবাল প্রিমিয়ার ব্যাংকের চেয়ারম্যান। তার ছেলে ইমরান ইকবাল ওই ব্যাংকের একজন পরিচালক। আরেক ছেলে মঈন ইকবাল ও মেয়ে নওরীন ইকবালও একসময় পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ছিলেন।

বিগত সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৭ সালের ২৭ মে ইকবাল, তার স্ত্রী ও সন্তানদের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে মামলা করে দুদক। পরের বছরের ১১ মার্চ বিশেষ জজ আদালত এ মামলার রায়ে ইকবালকে ১৩ বছরের কারাদণ্ড এবং ৫০ লাখ টাকা জরিমানা করেন। তার স্ত্রী ও সন্তানদের তিন বছর করে কারাদণ্ড এবং ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

মন্তব্য

মতামত দিন

রাজনীতি পাতার আরো খবর

জনগণ কেন খেসারত দেবে: কর্নেল অলি

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: ‘বড় বড় প্রজেক্ট হচ্ছে। প্রত্যেক দিন উদ্বোধন করা হচ্ছে। জনগণ কেন এটার খেসারত দেবে। বি . . . বিস্তারিত

বিএনপির ষড়যন্ত্রের ফাঁদে মানুষ পা দেবে না: আইনমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনব্রাহ্মণবাড়িয়া: বিএনপির ষড়যন্ত্রের ফাঁদে বাংলার মানুষ পা দেবে না বলে মন্তব্য করেছেন আইন, বিচার ও . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com