‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ খেতাব নিয়ে জনগণের সাথে মসকরা হচ্ছে: গয়েশ্বর

১০ অক্টোবর,২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরটিএনএন
ঢাকা: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, জনগণের সমর্থন ছাড়া পেশিশক্তির বলে প্রশাসনকে দলীয় ক্যাডার হিসেবে কাজে লাগিয়ে যারা ক্ষমতায় আছেন সেই ক্ষমতার শীর্ষ ব্যক্তিকে যখন মাদার অব হিউম্যানেটি বলে- সেটা জনগণের সাথে মসকরা, ঠাট্টা ছাড়া আর কিছুই নয়।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম আয়োজিত ‘সুশাসন ও নাগরিক অধিকার’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আজকে আদালতের পাশ দিয়ে আসার সময় লক্ষ করলাম রাস্তার দুইপাশে বড় বড় ফেস্টুন টানানো আর সেখানে লেখা আছে মাদার অব হিউম্যানেটি। মনে হল যারা এই শব্দটা যার বেলায় অবতারণা করেছেন, তারা জনগণের সাথে মসকরা করেছেন।

তিনি আরো বলেন, দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত করতে গেলে জনগণের প্রতিনিধিত্বশীল একটি সরকার যদি থাকে এবং সে রাষ্ট্র ব্যবস্থায় সংবিধানকে যদি সঠিকভাবে অনুসরণ করা হয় এবং আইনের শাসন যদি প্রতিষ্ঠিত করা হয় তাহলে সেখানে সুশাসন থাকে। আর এ আইনের শাসনটাকে নিশ্চিত করে স্বাধীন বিচার বিভাগ। স্বাধীন বিচার বিভাগ এবং প্রশাসন একে অপরের পরিপূরক হিসেবে নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করার ভূমিকা পালন করে। কিন্তু সরকার সেই বিচার বিভাগকেও মুজিবীকরণ করতে চায়।

দেশের নাগরিকরা সরকারের ভোগান্তির শেষ প্রান্তে মন্তব্য করে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশের গোটা ব্যবস্থার মধ্যদিয়ে আমার কাছে মনে হয় সবকিছু শেষের আগে যেসব অস্বাভাবিক ঘটনাগুলো ঘটে এই সরকার তেমনি আচরণ করছে। দেশের জনগণ তাদের ভোগান্তির শেষ প্রান্তে চলে এসেছে।’

শেখ হাসিনা নোবেল পাওয়ার যোগ্য! এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘শান্তির জন্য নয়, অর্থনীতির জন্য নয়, গুমের জন্য তিনি নোবেল পাওয়ার যোগ্য। এমনকি ৫ই জানুয়ারির অদ্ভূত নির্বাচনের জন্য তার নোবেল পাওয়া উচিত ছিল। যেহেতু নোবেল কমিটি তাকে দেয় নাই তাই আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের উচিত নীলখেত থেকে একটি নোবেল কিনে তাকে দেয়া। সেখানে অনেক নোবেল পাওয়া যায়।’

নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের সভাপতি আলহাজ্ব এ.কে.এম মোয়াজ্জেম হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আলহাজ্ব নাজিমউদ্দিন নাজিম মাস্টার, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি ফরিদ উদ্দীন আহমেদ, বাগেরহাট জেলা বিএনপির উপদেষ্টা ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনির, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এম জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

মন্তব্য

মতামত দিন

রাজনীতি পাতার আরো খবর

জামায়াতকে আলাদা চাপে রাখা হচ্ছে, তাই ভোটের মাঠে নেই: গয়েশ্বর

নিজস্ব প্রতিনিধিআরটিএনএনরাজশাহী: সরকারের চাপে বিএনপির সঙ্গে ধানের শীষের প্রচারে ভোটার মাঠে জামায়াত নেই বলে মন্তব্য করেছে . . . বিস্তারিত

সমাবেশ করতে বিএনপিকে মৌখিক অনুমতি দিল ডিএমপি

নিজস্ব প্রতিবেদকআরটিএনএনঢাকা: ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) বিএনপিকে বিক্ষোভ সমাবেশের মৌখিক অনুমতি দিয়েছে বলে জানিয়েছে . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান,
ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com